Home > সংবাদ > আল্লামা ওবাইদুল হক নঈমী’র মৃত্যুতে নেস্ট পরিবার গভীর ভাবে শোকাহত

বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন ও আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত বাংলাদেশের চেয়ারম্যান এবং চট্টগ্রাম নগরের ষোলশহরে অবস্থিত জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদ্রাসার শায়খুল হাদিস শেরে মিল্লাত মুফতি আল্লামা ওবাইদুল হক নঈমী (৭৭) আর নেই (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)।
গতকাল সোমবার (৬ জুলাই) বিকেল ৫টার দিকে হঠাৎ অসুস্থতাবোধ করার পর তিনি ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৫ ছেলে এবং অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে যান।
বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন আল্লামা মুফতি ওবাইদুল হক নঈমীর মৃত্যুতে আমরা নেস্ট পরিবার গভীর ভাবে শোকাহত। আমরা মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি। আল্লাহ যেন হুজুরকে জান্নাতের উচ্চ মকাম দান করেন, আমিন।নঈমী হুজুর দেশব্যাপী ইসলামের মূলধারার প্রচার প্রসারে ও দীনি শিক্ষা বিস্তারে অনন্য ভূমিকা রেখেছেন। তার মৃত্যুতে সুন্নি জনতা একজন সর্বোচ্চ অভিভাবককে হারিয়েছেন। সুন্নি অঙ্গনে যে শূন্যতার সৃষ্টি হয়েছে তা অপূরণীয়।

জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদ্রাসার মাঠে জানাজায় হাজারো মানুষের ঢল

বিশিষ্ট আলেমে দ্বীনের মৃত্যুতে সুন্নি মুসলিম জনতার মাঝে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।আল্লামা ওবাইদুল হক নঈমী দীর্ঘদিন ধরে জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলীয়ার প্রধান মুহাদ্দিসের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। পরে তিনি শায়খুল হাদিসের দায়িত্ব পালন করেন। তার গ্রামের বাড়ি চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার চাপাতলী গ্রামে।

জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদ্রাসার মাঠে জানাজায় হাজারো মানুষের ঢল

গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশের যুগ্ম মহাসচিব অ্যাড. মোছাহেব উদ্দিন বখতেয়ার বলেন, ‘নঈমী হুজুর কয়েকদিন আগে নগরের ষোলশহর শ্যামলী আবাসিক এলাকার বাসায় ওযু করার সময় পানির কলে হাতে ব্যাথা পান। এরপর তিনি অসুস্থ হন।

তিনি আরও বলেন, গতকাল সোমবার আসরের নামাজের প্রস্তুতিকালে অসুস্থতা বেড়ে গিয়ে বার্ধক্যজনিত কারণে হুজুরের রক্তচাপ বেড়ে যাওয়ায় হাসপাতালে নেওয়ার পথে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। আল্লামা নঈমীর ইন্তেকালে চট্টগ্রামসহ সমগ্র দেশে শোকের ছায়া নেমে আসে।

আজ মঙ্গলবার বাদ যোহর ষোলশহর জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদ্রাসা ময়দানে মরহুমের নামাজে জানাজা শেষে জামেয়া সংলগ্ন কবরস্থানে দাফন করা হয়।